বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪

| ৬ আষাঢ় ১৪৩১

বিশ্বকাপে বাংলাদেশের নেতৃত্ব সাকিবের হাতে

বিশ্বকাপে বাংলাদেশের নেতৃত্ব সাকিবের হাতে

এশিয়া কাপ ও বিশ্বকাপে বাংলাদেশ দলকে নেতৃত্ব দেবেন সাকিব আল হাসান। আজ ব্যাপারটি নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। এ প্রসঙ্গে বিসিবি সভাপতি বলেন, `এশিয়া ও বিশ্বকাপের জন্য অধিনায়ক সাকিব। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজেও অধিনায়কত্ব করবে। ও আসলে আমরা সিদ্ধান্ত নেব, তিন ফরম্যাটে অধিনায়ক থাকতে পারবে কিনা। গতকাল সাকিবের সঙ্গে কথা হয়েছে।` তিনি আরও বলেন, `আমরা সাকিবকে নিয়ে কোন সিদ্ধান্তহীনতায় ছিলাম না। তিন ফরম্যাটে অধিনায়কত্ব কঠিন হতে পারে সাকিবের জন্য। তবে ও যদি পারে তাতে আমাদের সমস্যা নেই। কাল এশিয়া কাপের জন্য ১৭ সদস্যের দল দিবে। তামিম বিশ্বকাপে খেলবে কিনা আমি নিশ্চিত না।` এর আগে গত মাসে হুট করেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসরের ঘোষণা দেন ওয়ানডে দলের নিয়মিত অধিনায়ক তামিম ইকবাল। এরপর প্রধানমন্ত্রীর অনুরোধে তিনি ওয়ানডে দলে ফেরত এলেও অধিনায়কত্ব থেকে সরে দাঁড়ান। গত ৩ আগস্ট বিসিবির সঙ্গে বৈঠক শেষে পাপনের বাসভবনের গ্যারেজে সংবাদ সম্মেলন করেন তামিম ইকবাল। সেখানেই ওয়ানডে নেতৃত্ব ছাড়ার ঘোষণা দেন তিনি। এরপর অবশ্য নতুন ওয়ানডে অধিনায়ক ঠিক করতে বেশি সময় নেয়নি বিসিবি।

বন্যায় কক্সবাজার-চট্টগ্রাম রুটে যান চলাচল বন্ধ

প্রবল বৃষ্টি, পাহাড়ি ঢল ও বন্যায় কক্সবাজার-চট্রগ্রাম মহাসড়কের বেশ কিছু স্থান তলিয়ে যাওয়ায় এ সড়কে যান চলাচল মঙ্গলবার ৮ আগস্ট সকাল থেকে বন্ধ রয়েছে। ফলে কক্সবাজারের সাথে চট্টগ্রাম ও বান্দরবানের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। গত কয়েক দিনের টানা বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলে, বাঁকখালী, মাতামুহুরি, সাঙ্গু নদী সহ বিভিন্ন নদীর পানি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। কক্সবাজারের খরুলিয়া, জোয়ারিয়ানালা, চিরিঙ্গা, চট্টগ্রামের সাতকানিয়ার কেরানীরহাট, চন্দনাইশ ও দোহাজারী এলাকার মহাসড়ক ঢলের পানিতে তলিয়ে গেছে। এসব সড়কের কোথাও কোথাও ৪ থেকে ৫ ফুট পানিতে ডুবে গেছে। এ কারণে কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কের যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। কক্সবাজারের সৌদিয়া পরিবহনের ইনচার্জ নিরুপম পাল নিরু জানান, মঙ্গলবার সকাল থেকে তাদের কোন বাস চট্টগ্রাম বা ঢাকার উদ্দ্যেশে ছেড়ে যায়নি। অনুরূপভাবে চট্টগ্রাম থেকেও তাদের কোন বাস কক্সবাজারে আসেনি। একই কথা বলেছেন, এস.আলম পরিবহনের কক্সবাজারের ইনচার্জ নুরুল আলম। তাদের অনেক বাস সড়কে বন্যার পানিতে আটকা পড়েছে বলে জানিয়েছেন। এদিকে, কক্সবাজারের বন্যা কবলিত বিভিন্ন এলাকায় ১০ পদাতিক ডিভিশনের সেনাবাহিনী সদস্যরা উদ্ধার কার্য শুরু করেছেন।

বিশ্বব্যাপী করোনার জরুরি অবস্থা তুলে নিলো ডব্লিউএইচও

করোনা মহামারিকে কেন্দ্র করে বিশ্বব্যাপী যে স্বাস্থ্যবিষয়ক জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা হয়েছিল তা তুলে নিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। প্রায় তিন বছর পর এই ঘোষণা দেওয়া হলো। মহামারি শেষ হওয়ার জন্য এটিকে একটি বড় পদক্ষেপ বলছে সংস্থাটি। ২০২০ সালে প্রথম কোভিডের জন্য ডব্লিউএইচও’র সর্বোচ্চ স্তরের সতর্কতা জারির তিনবছর পর তা তুলে নেওয়ার এই ঘোষণা এল।ডব্লিউএইচও-র ‘জরুরি অবস্থা’ কোভিড মহামারীর ওপর আন্তর্জাতিক অঙ্গনের মনোযোগ ধরে রাখার জন্য সহায়ক ছিল। এ ‘জরুরি অবস্থা’ আরও জারি রাখা দরকার কিনা সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে গত বৃহস্পতিবারই বৈঠক করেছে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের একটি প্যানেল। তার অনেক আগে থেকেই যুক্তরাষ্ট্রসহ বহু দেশ নিজস্বভাবে জারি করা কোভিড সংক্রান্ত জরুরি অবস্থা তুলে নেওয়া শুরু করেছে। এবার ডব্লিউএইচও’ও একই পথে হাঁটল। সংস্থাটির কর্মকর্তারা বলছেন, কোভিডে মৃত্যুর হার শীর্ষ পর্যায়ের এক লক্ষাধিক মানুষ থেকে সপ্তাহ প্রতি ৩ হাজার ৫শ’র কিছু বেশিতে নেমে এসেছে ২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে গত ২৪ এপ্রিল সময়ের মধ্যে। ডব্লিউএইচও’র মহাপরিচালক তেদ্রোস আধানম গেব্রিয়েসুস বলেছেন, মহামারিতে অন্তত ৭০ লাখ মানুষ মারা গেছে। তবে প্রকৃত মৃতের সংখ্যা ২ কোটির কাছাকাছি হতে পারে বলে জানান তিনি, যা সরকারি হিসাবে প্রায় তিনগুন।

ইডিসিএফ থেকে বাংলাদেশকে ৩ বিলিয়ন ডলার ঋণ দেবে দক্ষিণ কোরিয়া

বাংলাদেশ ও দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে ৩ বিলিয়ন ডলার সহায়তা প্রদানের লক্ষ্যে একটি ফ্রেমওয়ার্ক অ্যারেঞ্জমেন্ট সই হয়েছে। দক্ষিণ কোরিয়ার ইনচিওনে সই হওয়া এই ফ্রেমওয়ার্কের আওতায় ২০২৩-২০২৭ সাল পর্যন্ত অর্থনৈতিক উন্নয়ন সহযোগিতা তহবিল ( ইডিসিএফ ) থেকে ৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার (প্রায় ৩২ হাজার কোটি টাকা) ঋণ সহায়তা দেওয়া হবে। বৃহস্পতিবার (৪ মে) ঢাকার দক্ষিণ কোরিয়ার দূতাবাস এ তথ্য জানায়। দক্ষিণ কোরিয়ায় অনুষ্ঠিত এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) বোর্ড অব গভর্নরসের ৫৬ তম বার্ষিক সাধারণসভা উপলক্ষে এই চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠিত হয়। কোরিয়ার অর্থনীতি ও অর্থ বিভাগের প্রথম উপমন্ত্রী কিসুন বাং এবং অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) সচিব শরিফা খান নিজ নিজ দেশের পক্ষে চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন। এ উপলক্ষে ঢাকা এমআরটি লাইন -৪ এবং আরও দুটি প্রকল্পের জন্য ইডিসিএফ লোন এগ্রিমেন্ট (সিএনজি বাস ক্রয় এবং রেলওয়ে সিগন্যালিং সিস্টেমের আধুনিকীকরণ) বিষয়ে সমঝোতা স্মারক সই করেন সংশ্লিষ্ট প্রতিনিধিরা। এ চুক্তিটি দক্ষিণ কোরিয়ার পক্ষ থেকে আগামী পাঁচ বছরের জন্য বাংলাদেশকে ৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার পর্যন্ত ছাড়ের ঋণ প্রদানের আইনি ভিত্তি হিসেবে কাজ করবে। সেই অনুযায়ী ইডিসিএফ ঋণ পরিশোধের সময়কাল হবে ১৫ বছরের গ্রেস পিরিয়ডসহ ৪০ বছর। আর বার্ষিক সুদের হার হবে ০.০১-০.০৫ শতাংশ। ব্যবস্থা অনুসারে গৃহীত প্রকল্পগুলো ভবিষ্যতে দুই সরকারের মধ্যে ঘনিষ্ঠ আলোচনার মাধ্যমে চিহ্নিত করা হবে। নতুন ফ্রেমওয়ার্ক অ্যারেঞ্জমেন্ট সইয়ের মাধ্যমে বাংলাদেশ সারা বিশ্বে কোরিয়ার অফিসিয়াল ডেভেলপমেন্ট এইডের দ্বিতীয় বৃহত্তম প্রাপক হয়ে উঠেছে। কোরিয়া প্রজাতন্ত্রের সরকার বাংলাদেশের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক এবং বাংলাদেশের উজ্জ্বল ভবিষ্যতের পরিপ্রেক্ষিতে যথেষ্ট পরিমাণে সহায়তা বৃদ্ধির সাহসী সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এ বিষয়ে ঢাকায় নিযুক্ত দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রদূত লি জ্যাং কিউন বলেন, দুই দেশের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্কের ৫০তম বার্ষিকীতে একটি নতুন ইডিসিএফ ফ্রেমওয়ার্ক অ্যারেঞ্জমেন্ট স্বাক্ষর বিশেষভাবে অর্থবহ। রেয়াতযোগ্য ঋণের যথেষ্ট পরিমাণ বৃদ্ধির ফলে কোরিয়া বাংলাদেশে মেগা প্রকল্পে সহায়তা করতে সক্ষম হবে বলে আশা করা হচ্ছে। এভাবে বাংলাদেশের ক্রমাগত আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে অবদান রাখবে। আমি আশা করি এই ৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের সহায়তা বাংলাদেশের জনগণের দৈনন্দিন জীবনযাত্রা যেমন পরিবহন, স্বাস্থ্য ও শিক্ষাখাতে অবদান রাখবে। বাংলাদেশ ও কোরিয়ার জনগণের মধ্যে বন্ধুত্ব বাড়ানোর ক্ষেত্রে অনুঘটক হিসেবে কাজ করবে।

Advertisement

সম্পাদকীয় ও মতামত

পৃথিবীর এতগুলো দেশ ইউক্রেনকে বাদ দিয়ে কেন রাশিয়াকে সমর্থন করলো

পৃথিবীর এতগুলো দেশ ইউক্রেনকে বাদ দিয়ে কেন রাশিয়াকে সমর্থন করলো

ইউক্রেন যুদ্ধের এক বছর পর রাশিয়ার বিরুদ্ধে বৈশ্বিক ঐকমত্য প্রতিষ্ঠার প্রচেষ্টা মুখ থুবড়ে পড়েছে। অনেক দেশ বিকল্প নিরপেক্ষতার পথ নিয়েছে। বিভিন্ন উৎস থেকে জানা যাচ্ছে, রাশিয়াকে নিন্দাকারী দেশের সংখ্যা কমেছে। বতসোয়ানা তার ইউক্রেনপন্থী অবস্থান বদলে পরিষ্কারভাবে রাশিয়ার সমর্থনে অবস্থান নিয়েছে। দক্ষিণ আফ্রিকা নিরপেক্ষ অবস্থান থেকে রাশিয়ার দিকে হেলে পড়েছে এবং রাশিয়াকে নিন্দা করার আগের অবস্থান থেকে সরে কলম্বিয়া নিরপেক্ষ অবস্থান নিয়েছে। একই সময় বড়সংখ্যক দেশ ইউক্রেনকে সমর্থন দিতে অনীহা প্রকাশ করেছে। দৃষ্টান্ত হিসেবে আফ্রিকা মহাদেশের কথা বলা যায়। আফ্রিকান ইউনিয়ন মস্কোর প্রতি ‘অতিসত্বর অস্ত্রবিরতির’ আহ্বান জানানো সত্ত্বেও মহাদেশটির বেশির ভাগ দেশ নিরপেক্ষ অবস্থান নিয়েছে। এর কারণ হিসেবে অনেক পর্যবেক্ষকের যুক্তি হলো ঠান্ডা যুদ্ধকালে আফ্রিকার দেশগুলোর বামঘেঁষা সরকারগুলো সোভিয়েত ইউনিয়নের সমর্থক ছিল, সে ঐতিহ্য তারা ধরে রেখেছে। অন্যদের যুক্তি হলো আফ্রিকার দেশগুলোর বর্তমানের অনীহা জন্ম হয়েছে পশ্চিমাদের হস্তক্ষেপের ইতিহাস থেকে। আফ্রিকা মহাদেশের দেশগুলোর অভ্যন্তরীণ বিষয়ে কখনো প্রকাশ্যে, আবার কখনো গোপনে হস্তক্ষেপ করেছে পশ্চিমা দেশগুলো।

    Advertisement
    Advertisement
    ঢাকায় জাল সার্টিফিকেট তৈরির কারখানা, গ্রেপ্তার ৪

    ঢাকায় জাল সার্টিফিকেট তৈরির কারখানা, গ্রেপ্তার ৪

    রাজধানীর লালবাগ থানার বড়ঘাট মসজিদ এলাকার কাশ্মীরি গলির একটি বাড়ি। এই বাড়িটির দুটি কক্ষই স্কুল, কলেজ ও ডিপ্লোমা কোর্স এমনকি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষাসনদ, মার্কশিট তৈরির কারখানায় পরিণত হয়েছে! কক্ষ দুটিতে রয়েছে কম্পিউটার, প্রিন্টার থেকে শুরু করে সনদ তৈরিতে প্রয়োজনীয় সবকিছু। এই চক্রের চার সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গোয়েন্দা পুলিশ বলছে, চক্রটি দীর্ঘদিন ধরে মোটা অঙ্কের বিনিময়ে জাল সার্টিফিকেট তৈরি করে আসছিল। আর এই চক্রে প্রকৌশলী ও একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালক জড়িত। জাল সনদের ব্যবসা করে তাঁরা বিলাসবহুল জীবনযাপন করছেন। শুক্রবার দুপুরে জাল সনদ তৈরি ও বিক্রি চক্রের সদস্যদের গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) লালবাগ বিভাগের উপ পুলিশ কমিশনার (ডিসি) মশিউর রহমান। গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর রামপুরা এলাকায় অভিযান চালিয়ে প্রকৌশলী জিয়াউর রহমান এবং তাঁর স্ত্রী নুরুন্নাহার মিতুকে গ্রেপ্তার করে ডিবির লালবাগ বিভাগ। এ সময় তাঁদের বাসা থেকে বিপুল পরিমাণ একাডেমিক সনদ, মার্কশিট, এনভেলপ ও নগদ টাকা উদ্ধার করা হয়। তাঁদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে আজ সকালে লালবাগের ওই বাসায় অভিযান চালিয়ে গ্রেপ্তার করা হয় ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার ইয়াসিন আলী ও দারুল ইহসান বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালক বুলবুল আহমেদ বিপুকে। এ সময় বাসাটিতে জাল সনদ তৈরির যন্ত্রপাতি ও উপকরণ পাওয়া যায়। গোয়েন্দা কর্মকর্তারা দেখতে পান, দুই কক্ষ বিশিষ্ট বাসাটিতে দামি ল্যাপটপ, ডেস্কটপ, প্রিন্টার, স্ক্যানার ও এমবস মেশিন স্থাপন করা হয়েছে। এ ছাড়া বিভিন্ন ইউনিভার্সিটি থেকে সংগ্রহ করা খালি মার্কশিট ও সনদের। কর্মকর্তারা জানান, চক্রটি দুই ধরনের সনদ সরবরাহ করত। কোনো রকমের ভেরিফিকেশনের প্রয়োজন হবে না এ রকম সার্টিফিকেট, মার্কশিট, টেস্টিমনিয়াল সরবরাহ করত। আবার দেশে বিদেশে অনলাইনে ভেরিফিকেশন করা যাবে এমন সনদও সরবরাহ করত। আর যাচাই বাছাইয়ে যেন ধরা না পড়ে সে জন্য চক্রটি তাদের দলে ভিড়িয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় ও বোর্ডের বেশ কিছু দায়িত্বশীল ব্যক্তিদের। তাঁরা টাকার বিনিময়ে অনলাইনে জাল সনদের নম্বর সরবরাহ করতেন। চক্রের বিষয়ে ডিসি মশিউর রহমান বলেন, ‘চক্রটি মাত্র ১০০ টাকায় একটি সনদ তৈরি করে ৩ লাখ টাকায় বিক্রি করত। আমরা ধারণা করছি, অন্তত কয়েক হাজার মানুষের কাছে সনদ বিক্রি করেছে তারা। দীর্ঘদিন ধরে জাল সনদ বিক্রির কথা তারা স্বীকার করেছে। চক্রের সদস্যরা এর আগে একাধিকবার গ্রেপ্তার হয়েছে।’ মশিউর রহমান আরও বলেন, ‘এই চক্রের অন্যতম হোতা প্রকৌশলী জিয়াউর রহমান। জাল সনদ বিক্রি করে বিপুল পরিমাণ টাকা আয় করেছেন। এই টাকা দিয়ে বিলাসবহুল জীবনযাপন করেন। খুলেছেন ডেভেলপমেন্ট প্রতিষ্ঠান। কিনেছেন বিলাসবহুল ফ্ল্যাট। গ্রেপ্তার ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার ইয়াসিন আলী বিভিন্ন ছাপাখানা থেকে সব রকমের নিরাপত্তা বৈশিষ্ট্য সংবলিত অতি সূক্ষ্মভাবে জাল সনদের কাগজ ছাপিয়ে আনতেন। তিনি নিজেও বিভিন্ন গ্রাহকদের জাল সার্টিফিকেট, মার্কশিট, টেস্টিমনিয়াল ও ট্রান্সক্রিপ্ট দিতেন।’ কতটি বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তারা এই চক্রে জড়িত জানতে চাইলে মশিউর রহমান বলেন, ‘ইন্ডিপেনডেন্ট ও নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাড়া প্রায় সবক’টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়, উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়, বিভিন্ন কারিগরি ও ডিপ্লোমা বোর্ডের সনদ তারা বানায়। আমরা হাতেনাতে একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালককে গ্রেপ্তার করেছি। তদন্ত করে জড়িত অন্যদেরও গ্রেপ্তার করা হবে। নুরুন্নাহার মিতু ব্যতীত গ্রেপ্তারকৃত অন্য আসামিদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলার রেকর্ড পাওয়া গেছে।’

    Advertisement
    Advertisement
    কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সংযুক্তিতে হলিউডে চাকরি হারানোর শঙ্কা

    কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সংযুক্তিতে হলিউডে চাকরি হারানোর শঙ্কা

    রোবট বা যন্ত্রের দখলে চলে যাওয়া ভবিষ্যৎ কাল্পনিক পৃথিবী নিয়ে বহু বছর ধরেই গল্প ফেঁদে আসছেন হলিউডের চিত্রনাট্যকাররা৷ এবার তারাই যন্ত্রের কাছে নিজেদের চাকরি হারানোর শঙ্কায় পড়েছেন৷ শুরু করেছেন ধর্মঘটও৷ টেলিভিশন ও চলচ্চিত্রে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রযুক্তির ব্যবহারে রাশ টেনে ধরার দাবি তুলেছে দ্য রাইটার্স গিল্ড অব আমেরিকা-ডব্লিউজিএ৷ তবে স্টিমিং সেবায় মুনাফার কাটতি আর পড়তি বিজ্ঞাপনী আয়ে ধুঁকতে থাকা হলিউড স্টুডিওগুলো সেই দাবি প্রত্যাখ্যান করেছে৷ স্টুডিওগুলোর পক্ষে চুক্তির মধ্যস্থতাকারী অ্যালায়েন্স অব মোশন পিকচার্স অ্যান্ড টেলিভিশন প্রোডিউসার্সের মুখপাত্রের সঙ্গে এই বিষয়ে রয়টার্সের তরফে যোগাযোগ করা হলে তিনি কোনো মন্তব্য করেননি৷ গত কয়েক বছর ধরেই কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রযুক্তির ব্যবহার নিয়ে হলিউড পাড়ায় বিতর্ক চলছে৷ শেষমেস গত সোমবার (১ মে) থেকে ধর্মঘটে নেমেছেন মার্কিন চলচ্চিত্র ও টেলিভিশনের চিত্রনাট্যকাররা৷ ডব্লিউজিএর সমঝোতা কমিটির সদস্য চিত্রনাট্যকার জন অগাস্ট কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা নিয়ে তাদের উদ্বেগের মূল দুটি কারণ উল্লেখ করেন৷ তিনি বলেন, ‘আমরা চাই না আমাদের উপকরণ দিয়ে তাদের (কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার) খাওয়ার যোগান দিতে৷ সেই সঙ্গে আমরাও তাদের অপেশাদার খসড়া লেখা ঠিক করার ভূমিকায় থাকতে চাই না৷’ সাম্প্রতিক বছরগুলোতে হলিউডের চলচ্চিত্রে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ব্যবহার বেড়েই চলেছে৷ এআই বয়স্ক শিল্পীদের মুখের বলিরেখা মুছে দিতে সহায়তা করছে, অ্যানিমেশন চলচ্চিত্রকে বাস্তবের মতো করে তুলে ধরছে, এমনকি চিত্রনাট্য তৈরিতেও এআই-এর পরীক্ষামূলক ব্যবহার চলছে৷ এমন অবস্থায় চলচ্চিত্র জগতের সৃজনশীল এই পেশাটি কি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার দখলে চলে যাবে? সিডনি ইউনিভার্সিটির মোটুস ল্যাবের সহ-প্রতিষ্ঠাতা মাইক সেমুর বলেন, ‘একটা সময় ভাবা হয়েছিল যে যন্ত্র সৃজনশীল কাজ অন্তত মানুষের কাছ থেকে কেড়ে নিতে পারবে না৷ সেই বিশ্বাসে চিড় ধরলেও কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা চিত্রনাট্যকারদের সহায়তা করতে পারে বলে মনে করেন তিনি৷ অন্তত কোন কিছুর শুরুর শূন্যতা কাটাতে প্রযুক্তি ভূমিকা রাখতে পারে৷ আমি দাবি করছি না এআই অতি বুদ্ধিমান হয়ে উঠবে এবং সিটিজেন কেইন তৈরি করে ফেলবে৷ কেননা এটা যথার্থও হবে না৷’ তারপরও চলচ্চিত্রের কাহিনি রচয়িতাদের উদ্বেগের যথেষ্ট কারণ রয়েছে৷ যেমন, চিত্রনাট্যকার ওয়ারেন লেইট মনে করেন এর ফলে সামনের দিনে প্রযোজনা সংস্থা চিত্রনাট্যকারদের প্রথম খসড়ার বদলে দ্বিতীয় খসড়া তৈরির জন্য ভাড়া করবে৷ যার কারণে তাদেরকে কম টাকা দেওয়া হবে৷ চিত্রনাট্যকারদের ইউনিয়নের প্রস্তাব চ্যাটজিপিটির মতো কোনো কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার তৈরি করে দেওয়া রচনাকে ‘সাহিত্য উপকরণ’ বা ‘মূল উপকরণ’ হিসেবে অ্যাখ্যায়িত করা যাবে না৷ অর্থাৎ, এই ধরনের লেখা যদি চিত্রনাট্যকারকে দেওয়া হয় এজন্য তার মজুরি কমানো যাবে না৷ সেই সঙ্গে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাকে দক্ষ করে তোলার কাজে মানুষের রচিত বিদ্যমান চিত্রনাট্য ব্যবহার না করারও দাবি তুলেছেন তারা৷ কারণ এর ফলে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার কাছে মেধাস্বত্ত্ব চুরির দুয়ার খুলে যেতে পারে৷ চিত্রনাট্যকারদের ইউনিয়নের প্রস্তাব চ্যাটজিপিটির মতো কোনো কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার তৈরি করে দেওয়া রচনাকে ‘সাহিত্য উপকরণ’ বা ‘মূল উপকরণ’ হিসেবে অ্যাখ্যায়িত করা যাবে না৷ অর্থাৎ, এই ধরনের লেখা যদি চিত্রনাট্যকারকে দেওয়া হয় এজন্য তার মজুরি কমানো যাবে না৷ সেই সঙ্গে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাকে দক্ষ করে তোলার কাজে মানুষের রচিত বিদ্যমান চিত্রনাট্য ব্যবহার না করারও দাবি তুলেছেন তারা৷ কারণ এর ফলে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার কাছে মেধাস্বত্ত্ব চুরির দুয়ার খুলে যেতে পারে৷ ডব্লিউজিএ-এর প্রধান সমঝোতাকারী অ্যালেন স্টুটজম্যান বলেন, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাকে তাদের সদস্যরা ‘নকল করার যন্ত্র’ হিসেবে অভিহিত করেন৷ ‘কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাকে টেলিভিশন ও চলচ্চিত্রের লেখকদের জায়গায় প্রতিস্থাপন করা উচিত হবে না৷ এই চেষ্টা না করার পেছনে আমাদের যৌক্তিক প্রস্তাব রয়েছে।’

    বিশ্বকাপে বাংলাদেশের নেতৃত্ব সাকিবের হাতে

    বিশ্বকাপে বাংলাদেশের নেতৃত্ব সাকিবের হাতে

    এশিয়া কাপ ও বিশ্বকাপে বাংলাদেশ দলকে নেতৃত্ব দেবেন সাকিব আল হাসান। আজ ব্যাপারটি নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। এ প্রসঙ্গে বিসিবি সভাপতি বলেন, `এশিয়া ও বিশ্বকাপের জন্য অধিনায়ক সাকিব। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজেও অধিনায়কত্ব করবে। ও আসলে আমরা সিদ্ধান্ত নেব, তিন ফরম্যাটে অধিনায়ক থাকতে পারবে কিনা। গতকাল সাকিবের সঙ্গে কথা হয়েছে।` তিনি আরও বলেন, `আমরা সাকিবকে নিয়ে কোন সিদ্ধান্তহীনতায় ছিলাম না। তিন ফরম্যাটে অধিনায়কত্ব কঠিন হতে পারে সাকিবের জন্য। তবে ও যদি পারে তাতে আমাদের সমস্যা নেই। কাল এশিয়া কাপের জন্য ১৭ সদস্যের দল দিবে। তামিম বিশ্বকাপে খেলবে কিনা আমি নিশ্চিত না।` এর আগে গত মাসে হুট করেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসরের ঘোষণা দেন ওয়ানডে দলের নিয়মিত অধিনায়ক তামিম ইকবাল। এরপর প্রধানমন্ত্রীর অনুরোধে তিনি ওয়ানডে দলে ফেরত এলেও অধিনায়কত্ব থেকে সরে দাঁড়ান। গত ৩ আগস্ট বিসিবির সঙ্গে বৈঠক শেষে পাপনের বাসভবনের গ্যারেজে সংবাদ সম্মেলন করেন তামিম ইকবাল। সেখানেই ওয়ানডে নেতৃত্ব ছাড়ার ঘোষণা দেন তিনি। এরপর অবশ্য নতুন ওয়ানডে অধিনায়ক ঠিক করতে বেশি সময় নেয়নি বিসিবি।

    Advertisement